!!—বঙ্গমাতা গোল্ডকাপের ফাইনালে বাংলাদেশ—!!

খেলাধুলা
বঙ্গমাতা অনূর্ধ্ব-১৯ নারী আন্তর্জাতিক ফুটবল টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় সেমিফাইনালে মঙ্গলবার মনিকা চাকমার গোলে মঙ্গোলিয়ার বিপক্ষে প্রধমার্ধে এগিয়ে যায় বাংলাদেশ…!!
বল নিয়ে নিয়ে এগিয়ে গেলেও মার্জিয়ার সামনে বাধা হয়ে দাঁড়ালেন প্রতিপক্ষের গোলরক্ষক। পরে তার গোলেই বড় জয় নিয়ে মাঠ ছেড়েছে স্বাগতিকরা -বাফুফে…!!

উত্তাল গ্যালারি। সবুজ জার্সি পরা মেয়েরা একে ওপরের কাছ থেকে বল নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে প্রতিপক্ষের গোল পোস্টের দিকে। আক্রমণের পর আক্রমণ চলছেই তবে মিলছে না সফলতা। ঠিক এমন সময়েই সমর্থকদের মুখ থেকে ভেসে আসছে বাংলাদেশ! বাংলাদেশ! চিৎকার—!!

প্রথমার্ধের অতিরিক্ত সময়েই দর্শকদের খুশি করল বাংলাদেশ দল। বঙ্গমাতা অনূর্ধ্ব-১৯ মহিলা আন্তর্জাতিক গোল্ডকাপ টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় সেমিফাইনালে মঙ্গোলিয়ার বিপক্ষে দুর্দান্ত জয় তুলে নিয়ে ফাইনাল নিশ্চিত করেছে স্বাগতিক বাংলাদেশ। মঙ্গলবার ঢাকার বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় সেমিফাইনালে মঙ্গোলিয়াকে ৩-০ গোলে হারিয়ে ফাইনালের টিকিট পায় লাল-সবুজরা। আগামী ৩ মে অনুষ্ঠিত হবে টুর্নামেন্টের ফাইনাল। যেখানে লাওসের মুখোমুখি হবে স্বাগতিক দলটি…!!

টুর্নামেন্টের শুরু থেকেই দুই দলের পারফরম্যান্স বলে দিচ্ছিলো ফাইনালটা হবে স্বাগতিক বাংলাদেশ এবং লাওসের মধ্যেই। এই দুটি দলই ছিল প্রথমবার অনুষ্ঠিত হওয়া বঙ্গমাতার নামের এই টুর্নামেন্টের অন্যতম হট ফেবারিট। তাই ফাইনালে এবার লড়াইটা হবে সেয়ানে-সেয়ানে। তবে বাংলাদেশের জন্য সতর্ক বার্তা হচ্ছে গ্রম্নপ থেকে সেমিফাইনাল পর্যন্ত প্রতিটি ম্যাচেই লাওস জিতেছে বড় ব্যবধানে (৫-০, ৬-০, ৭-১)। অর্থাৎ ক্রমেই গোলের ব্যবধানটা বাড়িয়েছে তারা। যেখানে বাংলাদেশ সবে তিন গোলের গন্ডি পেরিয়েছে সেমিতে। তবে হিসেব করলে তারাও কি ম্যাচ বাই ম্যাচ উন্নতি করেছে। কিন্তু ফাইনাল লাইনআপ হয়ে যাবার পরই গ্যালারিতে কানাঘুষা। নিজেদের কৌশল না বদলালে হয়তো সোনালী শিরোপাটা ছুয়ে দেখা সম্ভব হবে নাবাংলাদেশের জন্য…!!

বাংলাদেশ আক্রমণাত্মক ফুটবল খেলবে। সেটা জেনে-বুঝেই ম্যাচের শুরু থেকে ডিফেন্সিভ ফুটবল খেলেছে মঙ্গোলিয়া। যে কারণে গোলের সুযোগ সৃষ্টি করতেই বেগ পেতে হয়েছে ছোটন শিষ্যদের। ১৬ মিনিটে মারিয়ার কর্নারে আঁখির হেড অল্পের জন্য জড়ায়নি জালে। পরের মিনিটেই প্রতিপক্ষের খেলোয়াড়কে ডস দিয়ে দারুণ দক্ষতায় বল কাটিয়ে নিয়ে কোনাকুনি শট নেন সানজিদা। কিন্তু এবার গোলে বাধা হয়ে দাঁড়ায় সাইডপোস্ট। ২১ মিনিটে বক্সের ভেতর আঁখি খাতুনের শট প্রতিপক্ষ এক ডিফেন্ডারের বুকে লেগে গতিপথ বদলে যায়…!!

২২ মিনিটে কর্নার থেকে নার্গিস খাতুনের হেডে বল পেয়ে শট নেন দলীয় অধিনায়ক মিশরাত জাহান মৌসুমী। কিন্তু বল জড়ায়নি জালে। ২৪ মিনিটে বা প্রান্ত থেকে মার্জিয়ার শট সরাসরি গ্রিপে নেন গোলরক্ষক। ৩৮ মিনিটে কর্নার কিক থেকে বল পেয়ে মনিকার হালকা টাচে বক্সে বল পান মৌসুমী। কিন্তু লক্ষ্যে স্থির থাকতে পারেননি। ৪২ মিনিটে ডান প্রান্তে বল পান মৌসুমি…!!

কিন্তু এবারো সুযোগটা কাজে লাগাতে পারেননি বাংলাদেশের অধিনায়ক। প্রথমার্ধের ইনজুরি টাইমে (৪৫+১) ম্যাচে লিড নেয় স্বাগতিকরা। সতীর্থের বাড়িয়ে দেয়া বল হেড দিয়ে কিছুটা সামনে পাঠিয়ে নিজেই নিয়ন্ত্রণে নিয়ে বক্সের মাথা থেকে অসাধারণ বা পায়ের উড়ন্ত ভলিতে লক্ষ্যভেদ করেন মিডফিল্ডার মনিকা চাকমা (১-০)। এক গোল পেয়ে কিছুটা স্বস্তি নিয়ে বিশ্রামে যায় টিম বাংলাদেশ…!!

দ্বিতীয়ার্ধেও মঙ্গোলিয়ার ১০ ফুটবলার ব্যস্ত ছিল বাংলাদেশের আক্রমণ ঠেকাতেই। ৫১ মিনিটে বদলি ফরোয়ার্ড তহুরার পাসে বক্সে বল পান মিডফিল্ডার মার্জিয়া। কিন্তু বল বাইরে মেরে গোলের সহজ সুযোগটি হাতছাড়া করেন এই মিডফিল্ডার। ৫৬ মিনিটে বা প্রান্ত থেকে তহুরার পাসে বল পেয়ে শট নেন মৌসুমি। কিন্তু বল জড়ায়নি জালে। ৫৮ মিনিটে মারিয়া মান্ডার শট কর্নারের বিনিময়ে রক্ষা করেন গোলরক্ষক…!!

৬৯ মিনিটে মনিকা চাকমার থ্রম্ন পাস থেকে বক্সের ভেতর ঢুকে বা পায়ের প্রেসিং শটে বল জালে পাঠিয়ে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন মিডফিল্ডার মার্জিয়া (২-০)। ৮৫ মিনিটে ব্যবধানটা আরও বাড়িয়ে নেয় লাল-সবুজরা। মনিকা চাকমার পাসে বল পান সামসুন্নাহার। তিনি নিজে শট না নিয়ে বলটা বাড়িয়ে দেন সতীর্থের উদ্দেশ্যে। বক্স লাইন থেকে ডান পায়ের কোনাকুনি শটে লক্ষ্যভেদ করেন বদলি ফরোয়ার্ড তহুরা খাতুন (৩-০)। আর এই গোলেই জয় নিশ্চিত হয় লাল-সবুজদের…!!

গ্রম্নপপর্বে নিজেদের প্রথম ম্যাচে সংযুক্ত আরব আমিরাতকে ২-০ গোলে হারায় বাংলাদেশ। এরপর কিরগিজস্তানের বিপক্ষে ২-১ গোলে জিতে ‘বি’ গ্রম্নপের চ্যাম্পিয়ন হয়ে নাম লেখায় সেমিফাইনালে। যেখানে প্রতিপক্ষ মঙ্গোলিয়া রক্ষণাত্মক ফুটবল খেললেও বড় ব্যবধানের জয় নিয়েই ফাইনালের টিকিট নিশ্চিত করেন তহুরা-মার্জিয়ারা…!!

Leave a Reply