30টি রমজানের 30 টি ফজিলত “আসুন নিজে জানি এবং অন্যকে জানাই”

ইসলাম

‘(১ম)- রমজানে =  “নবজাতকের” মত নিষ্পাপ করে দেওয়া হয় রোজাদারকে…!!

‘(২য়)- রমজানে =  মা -বাবাকে মাফ করে দেওয়া হয় রোজাদারর…!!

‘ (৩য়)- রমজানে =  একজন ফেরেশতা আবারও রোজাদারের ক্ষমার ঘোষনা দেয়..!!

‘ (৪র্থ)- রমজানে =  আসমানী বড় বড় চার কিতাবের বর্ণ সমান সাওয়াব প্রদান করা হয় রোজাদারকে…!!

‘(৫ম)- রমজানে=  (মক্কা নগরীর) মসজিদে হারামে নামাজ আদায়ের সাওয়াব দেওয়া হয় …!!

‘ (৬ষ্ঠ)- রমজানে= ফেরেশতাদের সাথে ৭ম আকাশে অবস্থিত বাইতুল মামূর তাওয়াফের সাওয়াব প্রদান করা হয় রোজাদারকে…!!

‘ (৭ম)- রমজানে=  ফিরাউনের বিরুদ্ধে মুসা আঃ এর পক্ষে সহযোগিতা করার সমান সাওয়াব প্রদান করা হয়…!!

‘ (৮ম)- রমজানে =  হযরত ইবরাহীম আঃ এর মতো রহমত- বর্ষিত হয়  “রোজাদারের উপর”…!!

‘ (৯ম)- রমজানে=  নবী-রাসূলদের সাথে দাড়িয়ে ইবাদতের সমান সওয়াব দেওয়া হয় রোজাদারকে…!!

‘(১০ম)- রমজানে=  “রোজাদারকে”  উভয় জাহানের কল্যাণ দান করা হয়…!!

‘( ১১তম)- রমজানে=  মৃত্যু কে-নবজাতকের ন্যায় নিষ্পাপ নিশ্চিত হয় রোজাদারের…!!

‘( ১২তম)- রমজানে=  হাশরের ময়দানে রোজাদারের চেহারা পূর্ণিমা চাদের মতো উজ্জল করা হবে…!!

‘ (১৩তম)- রমজানে=  হাশরের ময়দানের সকল বিপদ থেকে নিরাপদ করা হবে রোজাদার…!!

‘( ১৪তম)- রমজানে= রোজাদারের হাশরের ময়দানে হিসাব- নিকাশ সহজ করা হবে…!!

‘(১৫তম) -রমজানে = রোজাদারের জন্য সমস্ত ফিরিস্তারা  দোয়া করে…!!

‘ (১৬তম) -রমজানে=  আল্লাহ রোজাদারকে জাহান্নাম থেকে মুক্তি  প্রদান করেন…!!

‘( ১৭তম)- রমজানে=  রোজাদার কে একদিনের জন্য নবীগনের সমান সাওয়াব দেওয়া হবে…!!

‘ (১৮তম)- রমজানে =  রোজাদার এবং তার মা-বাবার প্রতি আল্লাহর সন্তুষ্টির সংবাদ দেওয়া হয়…!!

‘(১৯তম)- রমজানে= পৃথিবীর সকল পাথর-কংকর টিলা- টংকর রোজাদারের জন্য দোয়া করতে থাকে…!!

‘( ২০তম)- রমজানে =  রোজাদার কে আল্লাহরপথে জীবন দানকারী শহীদের সমান সাওয়াব প্রদান করা হয়…!!

‘ (২১তম)- রমজানে =  রোজাদারের জন্য জান্নাতে একটি উজ্জল প্রাসাদ নির্মান করা হয়…!!

‘( ২২তম)- রমজানে=  রোজাদার হাশরের ময়দানের সকল চিন্তা থেকে মুক্ত করা হয়…!!

‘(২৩তম)- রমজানে=   রোজাদারের জন্য একটি শহর নির্মান করা হয় জান্নাতে…!!

‘(২৪তম)- রমজানে =  যে কোন 24টি দোয়া কবুল করা হয় রোজাদারের…!!

‘( ২৫তম)- রমজানে=  কবরের শাস্তি চিরতরে বন্ধ করে দেওয়া হয়…!!

‘( ২৬তম)- রমজানে = রোজাদার কে 40 বছর ইবাদতের সমান সওয়াব প্রদান করা হয়…!!

‘ (২৭তম)- রমজানে= রোজাদার কে চোখের পলকে পুলসিরাত পার করে দেওয়া হয়…!!

‘( ২৮তম)- রমজানে=  জান্নাতের নেয়ামত দ্বিগুন করে দেওয়া হয়…!!

‘ (২৯তম)- রমজান=  রোজাদার কে ১০০০ কবুল হুজ্জের সওয়াব করে দেওয়া হয়…!!

‘ (৩০ তম)- রমজান=  পুরো রমজান মাসের ফজিলত দ্বীগুন করে দেওয়া হয়…!!